রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৮:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আল আইন মরুতীর্থ প্রবাসী গীতা সংঘ মন্দিরে সংবর্ধনা ক্লাইন্ট ফারিয়াকে মামলায় সাহায্য করে ব্লাকমেইলের শিকার আইনজীবী মৃন্ময় কুন্ডু তপু দুবাই জয় শ্রীকৃষ্ণ লোকনাথ সেবা সংঘের ৯ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন বই মানুষকে আলোকময় জগতে পৌঁছতে সহায়তা করে- অধ্যাপক ড. সুকান্ত ভট্টাচার্য সন্তদাস কাঠিয়াবাবা মহারাজজীর ১৬৫তম আর্বিভাব উৎসব ২০২৪ মৌলভীবাজারে হিন্দু নারী সেজে লোকনাথ সেবাশ্রমে চুরি, হাতেনাতে আটক ৩ ধামরাইয়ে জগন্নাথ মন্দিরের ১৬তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও লোকনাথ ব্রহ্মচারীর ১৩৪তম তিরোধান দিবস উদযাপন কুলাউড়া উপজেলায় একের পর এক গীতা স্কুল উদ্বোধন পঞ্চগড়ে একযোগে পাঁচ হাজার কণ্ঠে গীতাপাঠ ও পিতা-মাতার পূজা অনুষ্ঠিত ঢাকেশ্বরী মন্দিরের দান বাক্স লুটের চেষ্টা

এক রাতে ঠাকুরগাঁওয়ে ১৪ মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর

ছবি: সংগৃহীত

Spread the love

এক রাতে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের ১৪টি মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা।

শনিবার রাত থেকে রবিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) ভোররাত পর্যন্ত সময়ে উপজেলার ধনতলা, চাড়োল ও পাড়িয়া ইউনিয়নে বিভিন্ন গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে বালিয়াডাঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল আনাম জানিয়েছেন।

এর মধ্যে ধনতলা ইউনিয়নে নয়টি, চাড়োল ইউনিয়নে একটি ও পাড়িয়া ইউনিয়নে চারটি মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বিদ্যানাথ বর্মণ।

ছবি: সংগৃহীত

বিদ্যানাথ বর্মণ বলেন, ধনতলা ইউনিয়নের সিন্দুরপিণ্ডি থেকে টাকাহারা পর্যন্ত একটি হরিবাসর মন্দির, একটি কৃষ্ণ ঠাকুর মন্দির, পাঁচটি মনসা মন্দির, একটি লক্ষ্মী মন্দির ও একটি কালী মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করেছে।

তিনি আরো বলেন, ‘চাড়োল ইউনিয়নে একটি কালীমন্দির, পাড়িয়া ইউনিয়নে একটি বুড়া-বুড়ি মন্দির, একটি লক্ষ্মী মন্দির, একটি আমাতি মন্দির ও একটি মাসানমাঠ মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করা হয়েছে। প্রতিমাগুলোর হাত-পা, মাথা ভেঙে চূর্ণ-বিচূর্ণ করে ফেলেছে। আবার কিছু প্রতিমা ভেঙে পুকুরের পানিতে ফেলে রেখেছে।’

 

‘দুর্বৃত্তরা’ এ ঘটনা ঘটিয়েছে উল্লেখ করে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমরা চাই, প্রশাসন ঘটনাটি সঠিকভাবে তদন্ত করুক। সেইসঙ্গে প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্তার করা হোক।’

এদিকে, প্রতিমা ভাঙার খবর পেয়ে সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে, তা এখনো চিহ্নিত করা যায়নি। পুলিশ এ ঘটনায় কাজ করছে। কোনো গোষ্ঠী এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার উদ্দেশে এসব মূর্তি ভাঙচুর করেছে কি না, এসব বিষয় মাথায় নিয়ে ঘটনা তদন্ত করা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, শান্তি ও সম্প্রীতির জনপদকে যারা অশান্ত করতে অপতৎপরতা চালাচ্ছে, তাদের শিগগিরই আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে।

 



আমাদের ফেসবুক পেইজ