রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৭:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ফটিকছড়ি উত্তর জুজখোলা শ্রী শ্রী কালী ও দুর্গা মন্দিরের স্থায়ী কমিটি গঠন। ধামরাইয়ে রক্ত জবা তরুণ সংঘের উদ্যোগে ধর্মীয় উপসনালয় ও অঙ্গন পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম গ্রহন। সনাতন ধর্মের ভগবান-কে নিয়ে ফেইসবুকে আপত্তিকর মন্তব্য করায় মামলা দায়ের । প্রবর্তক সংঘের বিরুদ্ধে আবারো মামলা ঠুকছে ইসকন। আদালতের সমন জারি। (ইসকন) ‘জঙ্গি সংগঠন’ হিসেবে আখ্যায়িত ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা দায়ের। প্রবর্তক সংঘের আবাসিক হোস্টেলে ছাত্রীর আত্মহত্যা কুড়িগ্রামে প্রাচিন গো-মূর্তি উদ্ধার, পুলিশ সুপারের সংবাদ সম্মেলন একেরপর এক মন্দির চুরির ঘটনা আনোয়ারা দক্ষিণ শোলকাটা গ্রামে ধরা ছোঁয়ার বাইরে অপরাধীরা ওসি প্রদীপ নির্দোষ”সত‍্য উন্মোচনের দাবি সিনিয়র আইনজীবী এ‍্যাড: রানা দাসগুপ্ত রক্ষাকালী মন্দির ও রাস্তাঘাট উন্নয়নে নবনীত পৌর মেয়রের সাথে মতবিনিময়

কুড়িগ্রামে প্রাচিন গো-মূর্তি উদ্ধার, পুলিশ সুপারের সংবাদ সম্মেলন

Spread the love

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার নেওয়াশি ইউনিয়নের মধ্য সুখাতি বামনটারী গ্রামে পরিত্যক্ত প্রাচিন মন্দির থেকে একটি পাথরের গো-মূর্তি উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকুত গো-মূর্তিটি নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভার আয়োজন করেন কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা।

রবিবার সকালে কুড়িগ্রাম পুলিশ সুপার কনফারেন্স কক্ষে মতবিনিময় সভায় উপস্তিত ছিলেন, এডিশনাল এসপি রুহুল আমিন, এএসপি উৎপল কুমার রায়, এএসপি কল্লোল দত্ত, প্রেসক্লাবের সভাপতি এডভোকেট আহসান হাবীব নীলু, সিনিয়র সাংবাদিক সফি খান, মমিনুল ইসলাম মঞ্জু, শ্যামল ভৌমিক, হুমায়ুন কবির সূর্যসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার জেলা প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহন করেন।

পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা জানান, গত ৯ জুলাই স্থানীয় কয়েকজন যুবক দেবোত্তর সম্পত্তিতে অবস্থিত ধ্বংসস্তুপ থেকে ইট-পাথর সড়াতে গিয়ে গো-মূর্তিতে পেয়ে তা নিজেদের মধ্যে রেখে দেয়। পরে পুলিশ এসে সেটি নিজেদের হেফাজতে নেয়। ২০ কেজি ওজনের গো-মূর্তিটি কষ্টি পাথরের বলে ধারণা করা হচ্ছে। এটি ১৩ইঞ্চি লম্বা ও সাড়ে ৫ইঞ্চি চওড়া। এটি কষ্টি পাথরের হলে এর এন্টিক মূল্য কয়েক কোটি টাকা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গো-মূর্তিটি পরবর্তীতে প্রত্নতাত্মিক বিভাগের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে বিধিমোতাবেকভাবে হস্তান্তর করা হবে বলে জানানো হয়।

জনশ্রুতি রয়েছে কয়েকশ’ বছর পূর্বে গোসাইয়ের ভিটায় গোসাই রাজা নামে এক রাজা বসবাস করতেন। তারই নামে গ্রামের নামকরণ করা হয় গোসাইয়ের ভিটা। এইট ওই পুরাতন রাজবাড়ীর মন্দিরের মূর্তি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।



আমাদের ফেসবুক পেইজ