রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সিলেটের সন্তোষ রবি দাস এর স্বপ্নের যাত্রা শুরু কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন উপহার ভারতীয় জনগণের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের জনগণের জন্য উপহারস্বরূপ অযোধ্যার রাম মন্দির নির্মাণের জন্য ১ কোটি টাকা দান করলেন গৌতম গম্ভীর জে এম সেন ভবনকে যাদুঘর হিসেবে প্রতিষ্ঠার জোর দাবী বগুড়া মাঝিড়া কালীমন্দির ভুমিদস্যুর কবল থেকে রক্ষা করার জন্য মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত স্বামীজী এক রেলস্টেশনে!! শীতলীপাত মন্দিরে মধ্যরাতে আটটি প্রতিমা ভাংচুর করেছে দুর্বৃত্তরা নড়াইলের সীমান্তবর্তী বাঁকড়ীতে কমরেড অমল সেনের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ বাগীশিক শ্রীমঙ্গল উপজেলা সন্মেলনে উপজেলা চেয়ারম্যান হাজরা বর্তমান সময়ের এই ঘুনে ধরা সমাজকে পরিবর্তনের জন্য গীতা শিক্ষার কোন বিকল্প নেই চসিক প্রশাসকের রোগমুক্তি কামনায় বাগীশিক এর বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত

নড়াইলের কমরেড হেমন্ত সরকার ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার অকৃতদার

উজ্জ্বল রায়-নড়াইল জেলা প্রতিনিধি: কমরেড হেমন্ত সরকার ছিলেন কৃষক আন্দোলনের আলোক বর্তিকা। জমিদারদের লাঠিয়াল হওয়া সত্বেও তেভাগা আন্দোলনকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে জমিদারদের বিরুদ্ধে লাঠি ধরতে তিনি দ্বিধা করেননি। মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার অকৃতদার এই নেতাকে এ প্রজন্মের সামনে তুলে ধরতে হবে।।তিনি জনগণতান্ত্রিক বিপ্লবের মাধ্যমে শোষণহীন সমাজ ব্যবস্থা কায়েমের স্বপ্ন দেখতেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি নীতিচ্যুত হননি। সোমবার ছিল হেমন্ত সরকারের ২২তম মৃত্যুার্ষিকী। বিকেল ৩টায় নড়াইল সদর উপজেলার বড়েন্দার গ্রামে তার সমাধি চত্বরে অনুষ্ঠিত এক স্মরণ সভায় বাংলাদেশের ওর্য়াকার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য কমরেড মুস্তফা লুৎফুল্লা এমপি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। এর আগে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তার সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন।
 
ওর্য়াকার্স পার্টি ও হেমন্ত সরকার স্মৃতিরক্ষা যুব কমিটি এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। কমরেড নির্মল গোলদারের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন,জেলা ওর্য়াকার্স পার্টির সভাপতি কমরেড নজরুল ইসলাম। বক্তব্য দেন,জেলা ওর্য়াকার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম,অধ্যাপক মলয় কআন্তি নন্দী,শাহাজান মৃধা,নারদ বালা,শচীন্দ্রনাথ অধিকারী,স্বপ্না সেন, সৌরভ গোলদার প্রমুখ।
 
কমরেড হেমন্ত সরকার ১৯১০ সালে নড়াইল সদর উপজেলার বড়েন্দআর গ্রামে কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। দারিদ্রের কারণে তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত ছিলেন। প্রথম জীবনে তিনি নড়াইলের প্রতাপশালী জমিদারদের লাঠিয়াল হিসেবে কাজ করতেন। পরে উপমহাদেশের প্রখ্যাত কমিউনিষ্ট নেতা কমরেড অমল সেনের সংস্পর্শে এসে মার্কসবাদের দীক্ষা নেন এবং সব ছেড়ে কমিউনিষ্ট আন্দোলনে নিজেকে উৎসর্গ করেন। চল্লিশ দশকে তিনি তেভাগা াান্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।
 
সাংগঠনিক দক্ষতা ্ও যোগ্যতার বলে তিসি প্রথমে পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিষ্ট পার্টি(এম এল) ও পরবর্তীতে স্বাধীনতার পরে বাংলাদেশের বিপ্লবী কমিউনিষ্ট পার্টি(এম এল)এর যশোর জেলা ও কেন্দ্রীয় কমিটির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। অকৃতদার এই নেতা ৮৮ বছরের জীবনকালের মধ্যে ৬০ বছরই জেলখানায় ্ও আত্মগোপনে কাটিয়েছেন।
 
জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি কখনো আদর্শের সাথে আপোষ করেননি। ১৯৯৮ সালের ২৮ ডিসেম্বর ভোরে আত্মগোপনে থাকাকালীণ নড়াইলের এক বাড়িতে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।



আমাদের ফেসবুক পেইজ