রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সিলেটের সন্তোষ রবি দাস এর স্বপ্নের যাত্রা শুরু কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন উপহার ভারতীয় জনগণের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের জনগণের জন্য উপহারস্বরূপ অযোধ্যার রাম মন্দির নির্মাণের জন্য ১ কোটি টাকা দান করলেন গৌতম গম্ভীর জে এম সেন ভবনকে যাদুঘর হিসেবে প্রতিষ্ঠার জোর দাবী বগুড়া মাঝিড়া কালীমন্দির ভুমিদস্যুর কবল থেকে রক্ষা করার জন্য মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত স্বামীজী এক রেলস্টেশনে!! শীতলীপাত মন্দিরে মধ্যরাতে আটটি প্রতিমা ভাংচুর করেছে দুর্বৃত্তরা নড়াইলের সীমান্তবর্তী বাঁকড়ীতে কমরেড অমল সেনের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ বাগীশিক শ্রীমঙ্গল উপজেলা সন্মেলনে উপজেলা চেয়ারম্যান হাজরা বর্তমান সময়ের এই ঘুনে ধরা সমাজকে পরিবর্তনের জন্য গীতা শিক্ষার কোন বিকল্প নেই চসিক প্রশাসকের রোগমুক্তি কামনায় বাগীশিক এর বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত

ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের স্মৃতি বিজড়িত ভবনে আঘাত মেনে নিবে না বাংলার জনগণ

ঐতিহ্য ও স্মৃতি রক্ষার্থে আবারও একসাথে চট্টলাবাসি। চট্টগ্রামে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের স্মৃতি বিজড়িত ১৫০ বছরের পুরনো যতীন্দ্র মোহন সেনগুপ্ত ও নেলী সেনগুপ্তের ভবন ভাঙার অপচেষ্টা বন্ধ করে ওখানে বিপ্লবীদের স্মৃতি জাদুঘর প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম ইতিহাস সংস্কৃতি গবেষণা কেন্দ্র।

 

মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান। জাল দলিল তৈরি করে ঐতিহাসিক ভবনটি ভাঙার অপচেষ্টার প্রতিবাদে সাংবাদ সম্মেলন ও মানববন্ধন করেন বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন।এ দাবির প্রতি সংহতি জানান খ্যাতিমান সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন, কবি-সাংবাদিক আবুল মোমেন, মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত এবং চট্টগ্রাম ইতিহাস সংস্কৃতি গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান আলীউর রহমান প্রমূখ।লিখিত বক্তব্যে দেশপ্রিয় যতীন্দ্র মোহন সেনগুপ্ত ও নেলী সেনগুপ্তের ওই জায়গার যেসব জাল দলিল সৃজন করা হয়েছে তা দেশের ঐতিহ্য কৃষ্টি রক্ষার স্বার্থে বাতিল ঘোষণা,

 

চট্টগ্রাম জেলা যুগ্ম জজ প্রথম আদালত থেকে প্রদত্ত আদেশ ও উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসন ও ভূমি অফিসকে না জানিয়ে সরকারি অর্পিত সম্পত্তি দখল করতে পুলিশি তৎপরতার যথাযথ তদন্ত, অর্পিত সম্পত্তিটি সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে হস্তান্তর করে ঐতিহাসিকন ভবনটি অক্ষত রেখে পেছনে বহুতল ভবন তৈরি করে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন স্মৃতি জাদুঘর ও গবেষণা কেন্দ্র গড়ে তোলা এবং ট্রাস্টি বোর্ড গঠনের দাবি জানানো হয়েছে।কবি আবুল মোমেন বলেন, সংবিধানের ২৪ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘বিশেষ শৈল্পিক কিংবা ঐতিহাসিক গুরুত্বসম্পন্ন বা তাৎপর্যমণ্ডিত স্মৃতিনিদর্শন, বস্তু বা বস্তুসমূহকে বিকৃতি, বিনাশ বা অপসারণ হইতে রক্ষা করিবার জন্য রাষ্ট্র ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন।

‘ যতীন্দ্রমোহন সেনগুপ্ত ও নেলী সেনগুপ্তের বাড়িটি সাংস্কৃতিক সম্পদ। এটির সুরক্ষা নিশ্চিত করার দায়িত্ব রাষ্ট্র ও নাগরিকদের। রাষ্ট্র উদাসীন থাকায় সচেতন নাগরিক হিসেবে জাদুঘর প্রতিষ্ঠার দাবি জানাতে এসেছি।অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত বলেন, চট্টগ্রাম আদালত ভবন ভাঙার যখন চক্রান্ত হয়েছিল আমরা প্রতিরোধ করেছি। সিআরবি, পুরাতন রেল স্টেশন ভাঙার চক্রান্ত হয়েছিল। এসব অপকর্মের বিরোধিতা করেছিলাম বলে, তা যৌক্তিক ছিল বলে রক্ষা পেয়েছে। আজও আমরা চট্টগ্রামের সচেতন নাগরিক হিসেবে এ ভবন রক্ষা ও সংরক্ষণের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানাই।

তিনি আশঙ্কা করেন, জাল দলিল দিয়ে ঐতিহাসিক ভবনটি ভাঙার অপচেষ্টা করা হয়েছে। যারা ভাঙতে এসেছে তারা আরজি, রায় দেখাচ্ছে না। গোপনে ফলস প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ফলস ডকুমেন্ট দেখানোর মাধ্যমে এ আদেশ এনেছে যা ইলিগ্যাল। প্রয়োজনে আদালত ভবন রক্ষার মতো বিপ্লবীদের স্মৃতি রক্ষায় জাদুঘর প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আইনি উদ্যোগ নিতে পিছপা হবো না।

 

মানববন্ধনে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, চট্টগ্রামের বীর জনতা, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট, জাগো হিন্দু পরিষদ, সনাতনী ঐক্য যুব সমাজ ও অন্যান্য সংগঠন একাত্মতা প্রকাশ করেন।উল্লেখ্য, গতকাল জাল দলিল তৈরি করে চট্টগ্রাম যুগ্ম জজ আদালত হতে অনুমতি নিয়ে জোর পূর্বক ভবনটি ভাঙচুর করার চেষ্টা করেন ভূমি দস্যুরা। বাক-বিতন্ডার এক পর্যায়ে অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্তের ওপরে হামলা চেষ্টাও চালানো হয়।



আমাদের ফেসবুক পেইজ